Deshdeshantor24com: Bangla news portal

ঢাকা শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪

তীব্র তাপদাহে ক্লাস-পরিক্ষা বন্ধের দাবি জবি শিক্ষার্থীদের 

তীব্র তাপদাহে ক্লাস-পরিক্ষা বন্ধের দাবি জবি শিক্ষার্থীদের 
সংগৃহীত ছবি

তীব্র তাপদাহে হাঁসফাঁস অবস্থা সর্বসাধারণের। রাতে তীব্র তাপদাহ ও আপেক্ষিক আর্দ্রতা বৃদ্ধির কারণে ঘুম হয় না ঠিকমতো, এর প্রভাব পড়ে পুরো দিনের কর্মব্যস্ততার উপরে। ঝিমুনি ও প্রচন্ড মাথা ব্যাথায় দৈনন্দিন কাজে মনোযোগ দিতে পারছেন না কেউই। এমন অবস্থা দেশের সকল শ্রেণি-পেশার মানুষের। 

দেশে চলমান তাপদাহের কারণে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও আবহাওয়া অধিদপ্তরের সাথে পরামর্শক্রমে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন সকল স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আগামী ২৫ এপ্রিল ২০২৪ পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে ।

পুরান ঢাকার অত্যন্ত ঘনবসতি পূর্ণ এলাকায় অবস্থিত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়। হল সুবিধা না থাকায় শিক্ষার্থীরা মেস ভাড়া করে থাকেন। আর্থিক দিক বিবেচনায় এক রুমে গাদাগাদি করে থাকেন অনেক শিক্ষার্থী। বদ্ধ পরিবেশে তীব্র গরমে পড়াশোনায় মনোযোগ দিতে পারছেন না শিক্ষার্থীরা। শিক্ষকরা সিলেবাস শেষ করে দিলেও নিজেদের পড়া গুছিয়ে নিতে পারছেন না তারা।  

অন্যদিকে যে সকল শিক্ষার্থী অনেক দূর থেকে আসেন তারা গুমোট পরিস্থিতির কারণে রাতে ঠিকমতো ঘুমাতে পারেন না। আবার ভোর ৫ টা বা ৬ টায় উঠে বিশ্ববিদ্যালয়ে আসার জন্য বাস ধরতে হয়। এতে পর্যাপ্ত ঘুম না হওয়ায় শিক্ষার্থীরা তীব্র মাথা ব্যাথা ও ঠান্ডা-জ্বরে আক্রান্ত হচ্ছেন। তীব্র গরম ও বাতাসে জলীয়বাষ্পের পরিমাণ বৃদ্ধির কারণে হিটস্ট্রোক ও ডিহাইড্রেশনের ঝুঁকি বাড়ছে। 

যদিও বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠদান কক্ষে শীতাতপনিয়ন্ত্রিত ব্যবস্থা রয়েছে; তবে এর সুফল পাচ্ছেন না শিক্ষার্থীরা। রাতে ঘুম না হওয়া ও তীব্র মাথাব্যথার কারণে শ্রেণিকক্ষের শীতল পরিবেশে অধিকাংশ শিক্ষার্থীরা ঝিমোতে থাকেন, কেউ বা ঘুমিয়ে যাচ্ছেন। ফলে শিক্ষকদের গুরুত্বপূর্ণ লেকচার তারা শুনতে ও বুঝতে পারছেন না। 

রসায়ন বিভাগের শিক্ষার্থী মারুফা হাকিম বলেন, আমাদের ক্লাস রুমে এসি থাকলেও ল্যাবগুলোতে ৪-৫ ঘন্টা দাড়িয়ে থাকতে হয়, যেখানে এসির ব্যবস্থা করা সম্ভব নয়। কিছু কাজ ফ্যান অফ করে করতে হয়। জায়গা সংকটে এক রুমেই প্রায় ৪০-৪৫ জন একসাথে ল্যাবে কাজ করতে হয়। প্রচন্ড গরমে সবাই অস্বস্তি বোধ করে। এত গরমের মধ্যে পড়াশোনা ঠিকমতো হয়ে উঠে না। ক্লাস-ল্যাব করে দূরে যাতায়াত করতে করতেই অনেকে অসুস্থ হয়ে যায়। কিন্তু শিক্ষকরা এই তীব্র তাপদাহে শিক্ষার্থীদের সার্বিক অবস্থা বিবেচনায় না নিয়ে দিব্যি ক্লাস, ল্যাব ও পরীক্ষা নিয়ে সিলেবাস শেষ করছে। শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা রাখার দায়িত্ব বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের। কিন্তু শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য ও পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় না নিয়ে একাডেমিক প্ল্যান করা হয় যা একটি অসুস্থ মানসিকতার পরিচয় দেয়।

শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থী সানজিদা মাহমুদ মিষ্টি বলেন, গ্রীষ্মের তীব্র তাপদাহে সাধারণ জনজীবন স্থবির হয়ে পড়েছে। শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে সকল মহলের জীবনযাপনে নাজেহাল রকমের অসুস্থতা ও দুর্বলতা পরিলক্ষিত। এমতাবস্থায় ক্যাম্পাস অন্তত কয়েকটা দিন বন্ধ দেওয়া যায় তাহলে সময়োপযোগী ও শিক্ষার্থীবান্ধব সিদ্ধান্ত হবে বলে মনে করি। 

ফার্মেসী বিভাগের অপর এক শিক্ষার্থী ইসনাইন জান্নাত ইশা বলেন, বর্তমানে তীব্র তাপদাহে অল্প পরিশ্রমেই দুর্বল হয়ে পড়ছি, পড়াশোনাতে মনোযোগ দিতে পারছি না। কিন্তু তাই বলে তো কোনো কাজ থেমে নেই। এই অসহনীয় গরমের মধ্যেও আমাদের প্রতিনিয়ত ক্লাসের জন্য ক্যাম্পাস আসতে হচ্ছে। এখানে সুপেয় পানিরও তেমন সুব্যবস্থা না থাকায় আমাদের অনেক বন্ধুবান্ধব, সিনিয়র জুনিয়র অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। তাই এই অসহনীয় গরম না কমা পর্যন্ত কিছুদিন ক্লাস-পরিক্ষা বন্ধ থাকলে সকলের জন্য ভালো হয়। 

এ বিষয়ে ছাত্রকল্যাণ পরিচালক ড. জি. এম. আল-আমীন বলেন, তীব্র তাপদাহে আমরা সকলেই অস্বস্তির মধ্যে আছি। তীব্র গরমে ক্লাস করা, বাসে যাতায়াত করা সকলের জন্যেই কষ্টকর। শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতের জন্য সরকার স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি বৃদ্ধি করেছে। যদি বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে আলাদাভাবে ছুটির কোনো ঘোষণা না দেয় তবে আমরা উপাচার্যের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে আমাদের শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে। 

তীব্র গরমে ফ্যান ছাড়া দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে ল্যাবে কাজ করার বিষয়ে তিনি বলেন, আমি বিজ্ঞানের শিক্ষক। আমি জানি শিক্ষার্থীদের দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে হয় ল্যাবে। অনেক সময় ফ্যান বন্ধ রাখতে হয়। উপাচার্যকে সকল বিষয়েই অবগত করা হবে যেন শিক্ষার্থীরা সুস্থভাবে ক্লাস-পরিক্ষায় বসতে পারে। 
টিএ